আমাদের সম্পর্কে

"খবরটিভি" সম্পর্কেঃ
"খবরটিভি" হল একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল যার লক্ষ্য সারা দেশে দর্শকদের সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ এবং মতামত প্রদান করা। 'সত্য প্রকাশে খবরটিভি' এই শ্লোগানে, অনলাইন নিউজ পোর্টালটি ০২ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে চালু হয়েছে। ০৪ অক্টোবর, ২০২০ তারিখে, "খবরটিভি" একটি অনলাইন মিডিয়া হিসাবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে আবেদিত। "খবরটিভি" প্রতিটি জেলার জাতীয় সংবাদ এবং সংবাদের উপর অতিরিক্ত জোর দেয়। যাইহোক, এটি রাজনীতি, অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক, ক্রীড়া, বিনোদন, শিক্ষা, তথ্য ও প্রযুক্তি, বৈশিষ্ট্য, জীবনধারা এবং কলামের মতো বিভিন্ন বিভাগও কভার করে। এই অনলাইন অন্যান্য অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে আলাদা এবং অনন্য, কারণ এটি 'মাল্টিমিডিয়া' সাংবাদিকতা অনুশীলন করে, পাঠকদের অডিও, ভিডিও, ইনফোগ্রাফিক্স এবং ওয়েব স্টোরি সহ দেশ-বিদেশের সকল খবর সরবরাহ করে।

"খবরটিভি'র সম্পাদকের পরিচিতিঃ 
দেশের সাংবাদিকতা জগতে মুহম্মদ আলতাফ হোসেন একটি পরিচিত নাম। তিনি ১৯৭০ সালে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করে বিগত ৫৪ বছরে দৈনিক আজাদ, দৈনিক গণকণ্ঠ, দৈনিক জনতা, দৈনিক সমাজ, দৈনিক ইনকিলাব সহ বিভিন্ন পত্রিকায় বিভিন্ন সময়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৭০ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ বেতারের বাংলা সংবাদ বিভাগে কাজ করেন। তাছাড়া বেতারে বিভিন্ন কথিকা ও সংবাদ পর্যালোচনা লিখেছেন দীর্ঘদিন। তিনি অবিভক্ত ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নির্বাহী সদস্য ছিলেন। তিনি নজরুল একাডেমীসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন। তার উদ্যোগেই ১৯৮২ সালের ১২ই ফেব্রুয়ারি দেশের সর্বস্তরের সাংবাদিকদের একক সংগঠন জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বিভিন্ন সংবাদপত্র ও ম্যাগাজিনে তার বহু প্রবন্ধ, গল্প, কবিতা ও নিবন্ধন প্রকাশিত হয়েছে। তিনি দেশের অন্যতম আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক হিসেবে পরিচিত। ১৯৭৩ সাল থেকে তিনি আন্তর্জাতিক বিষয়ে নিয়মিত পর্যালোচনামূলক লেখা লিখে আসছেন। মুহম্মদ আলতাফ হোসেন ১৯৭০ সালে সাংবাদিকতা পেশায় যোগদান করেন। সেই বছর তিনি সদ্য প্রকাশিত দৈনিক সংগ্রামে যোগ দেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে তিনি দৈনিক গণকণ্ঠে যোগদান করেন। ১৯৮৬ সালে দৈনিক ইনকিলাব প্রকাশিত হলে তিনি সহকারী বার্তা সম্পাদক পদে যোগ দেন। বিশিষ্ট বেতার ব্যক্তিত্ব মুহম্মদ আলতাফ হোসেন ১৯৭০ সালের ১৬ই অক্টোবর তৎকালীন রেডিও পাকিস্তান ঢাকা কেন্দ্রে যোগ দেন। তিনি ঢাকা বেতারে সব ধরণের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। বিভিন্ন কথিকা ও সংবাদ পর্যালোচনা লিখে তিনি সুনাম অর্জন করেন। ঢাকা বেতারের বার্তা বিভাগেও তিনি দীর্ঘদিন কাজ করেন। তিনি জাতীয় ভিত্তিক বার্তা প্রতিষ্ঠান এফএনএস (ফেয়ার নিউজ সার্ভিস) এর প্রধান সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার সম্পাদনায় বিগত ৪২ বছর ধরে প্রকাশিত হচ্ছে একটি সম্পূর্ণ জাতীয় সংবাদপত্র সমতল ও "খবরটিভি"। তিনি জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ও কেন্দ্রীয় সভাপতি। "খবরটিভি" একদল তরুণ, উদ্যমী, এবং অভিজ্ঞ সাংবাদিকদের দ্বারা পরিচালিত "খবরটিভি" তার পাঠকদের সবচেয়ে জটিল বিষয়গুলি সহজে বুঝতে সাহায্য করার জন্য সংবাদের গল্প বলার ধরণকে অগ্রাধিকার দেয়।

উদ্দেশ্যঃ
খবরটিভি, এর লক্ষ্য তার পাঠকদের জন্য সবচেয়ে কম সময়ের মধ্যে সবচেয়ে আপডেট খবর প্রদান করা। দ্রুত সংবাদ প্রদানের এই যাত্রায় "খবরটিভি" সর্বদা নির্ভুল, বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ হওয়ার চেষ্টা করে।

বাংলাদেশের সংবিধানের মৌলিক, মৌলিক নীতি অনুসরণ করে, "খবরটিভি" এর লক্ষ্য মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত শক্তিশালী করা।

খবরটিভি, দেশের মৌলিক মূল্যবোধ বিশেষ করে জাতীয় সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতার প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। এ ছাড়া দেশের নাগরিকের মানবিক ও নাগরিক অধিকারের পক্ষে কথা বলে "খবরটিভি"

নৈতিকতা নীতিঃ
"খবরটিভি" সর্বোচ্চ নৈতিক মানদণ্ডে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ন্যায়পরায়ণতা, নির্ভুলতা এবং বস্তুনিষ্ঠতা আমাদের সততা বজায় রাখার জন্য আমাদের মূল মানগুলির মধ্যে রয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি যে জনগণের বিশ্বাসযোগ্যতা আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। আমরা আমাদের পাঠকদের কাছেও স্বচ্ছ।

"খবরটিভি" রাজনৈতিক ইস্যুতে নির্দলীয় অবস্থান নেয় কারণ কোনো রাজনৈতিক দল আমাদের প্রভাবিত করতে পারে না। এছাড়া ন্যায় ও অন্যায় বা ন্যায় ও অন্যায়ের দ্বন্দ্বে এটি নিরপেক্ষ থাকে।

পরিণতি যাই হোক না কেন, "খবরটিভি" কখনোই জাতীয় স্বার্থ, মানবাধিকার, আইনের শাসন, জেন্ডার সমস্যা এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতার মতো বিষয়ে আপস করে না।